ষোড়শ মহাজনপদ ও মগধ সাম্রাজ্যের উত্থান:


ষোড়শ মহাজনপদ ছিল প্রধানত উত্তর ও মধ্য ভারতে খ্রিস্টপূর্ব ৬০০ থেকে খ্রিস্টপূর্ব ৪০০ সময়কালে অবস্থিত রাজতন্ত্রী ও প্রজাতন্ত্রী রাজ্য।

লোহার হাতিয়ারের ব্যাপক ব্যবহার এবং কৃষি অর্থনীতির বৃদ্ধি গাঙ্গেয় সমভূমিতে বৃহত্তর আঞ্চলিক রাজ্য গঠনের দিকে পরিচালিত করে। জনপদ বা অঞ্চলের প্রতি মানুষের দৃঢ় আনুগত্য ছিল। বৌদ্ধ ও জৈন সাহিত্যে এই রাজ্যগুলির উল্লেখ আছে। এগুলো ছিল রাজতান্ত্রিক এবং প্রজাতান্ত্রিক উভয় রাষ্ট্র।

ষোড়শ মহাজনপদ:
মগধ (পাটনা, গয়া এবং নালন্দা জেলা): প্রথম রাজধানী ছিল রাজগৃহ এবং পরবর্তী রাজধানী ছিল পাটলিপুত্র।


অঙ্গ ও বঙ্গ (মুঙ্গের ও ভাগলপুর): রাজধানী ছিল চম্পা। এটি একটি সমৃদ্ধ ব্যবসা কেন্দ্র ছিল।

মল্ল (দেওরিয়া, বস্তি, গোরখপুর অঞ্চল):
রাজধানী ছিল কুশিনগর। এটি অন্যান্য অনেক ছোট রাজ্যের আসন ছিল। তাদের প্রধান ধর্ম ছিল বৌদ্ধধর্ম।

বৎস (এলাহাবাদ ও মির্জাপুর):
রাজধানী ছিল কৌশাম্বী। এই রাজ্যের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ শাসক ছিলেন রাজা উদয়ন।

কাশী (বেনারস):
রাজধানী ছিল বারাণসী। যদিও কোশল রাজ্যের বিরুদ্ধে অনেক যুদ্ধ সংঘটিত হয়েছিল, অবশেষে কাশী কোশল রাজ্যের সাথে একীভূত হয়েছিল।

কোশল (অযোধ্যা):
যদিও এর রাজধানী ছিল শ্রাবস্তী যা সাহেত-মাহেতের সাথে অভিন্ন কিন্তু অযোধ্যা ছিল কোসলের একটি গুরুত্বপূর্ণ শহর। কোসল কপিলবস্তুর শাক্যদের উপজাতীয় প্রজাতন্ত্রী অঞ্চলও অন্তর্ভুক্ত করেছিল।

বজ্জি (মুজাফফরপুর এবং বৈশালী):
বজ্জি আটটি ছোট রাজ্যের একটি সংযুক্ত প্রজাতন্ত্রের আসন ছিল যার মধ্যে লিচ্ছবি, জনত্রিক এবং বিদেহরাও সদস্য ছিলেন।

কুরু (থানেশ্বর, মিরাট এবং বর্তমান দিল্লি): রাজধানী শহর ছিল ইন্দ্রপ্রস্থ।

পাঞ্চাল (পশ্চিম উত্তর প্রদেশ): এর রাজধানী ছিল কাম্পিলা। আগে একটি রাজতন্ত্র ছিল, পরে এটি একটি স্বাধীন প্রজাতন্ত্রে পরিণত হয়। কনৌজ এই রাজ্যের একটি গুরুত্বপূর্ণ শহর ছিল।

মৎস্য রাজ্য (আলওয়ার, ভরতপুর এবং জয়পুর):
এর রাজধানী ছিল বিরাটনগর।

অশ্মাক (নর্মদা ও গোদাবরীর মধ্যে):
এর রাজধানী ছিল পের্টাইয়ে এবং ব্রহ্মদত্ত ছিলেন এর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ শাসক।

গান্ধার (পেশোয়ার এবং রাওয়ালপিন্ডি):
এর রাজধানী তক্ষশীলা পরবর্তী বৈদিক যুগে একটি বাণিজ্য ও শিক্ষা কেন্দ্র (প্রাচীন তক্ষশীলা বিশ্ববিদ্যালয়) হিসাবে গুরুত্বপূর্ণ ছিল।

কাম্বোজ (পাকিস্তানের হাজারা জেলা, উত্তর-পূর্ব কাশ্মীর):
এর রাজধানী ছিল রাজাপুর। হাজরা এই রাজ্যের একটি গুরুত্বপূর্ণ ব্যবসা-বাণিজ্য কেন্দ্র ছিল।

অবন্তী (মালওয়া):
অবন্তীকে উত্তর ও দক্ষিণে দুই ভাগে ভাগ করা হয়েছিল। উত্তর অংশের রাজধানী ছিল উজ্জয়িনে এবং দক্ষিণ অংশের রাজধানী ছিল মাহিস্মতীতে।

চেদি (বুন্দেলখণ্ড):
শক্তিমতি ছিল চেদির রাজধানী। যমুনা ও নর্মদা নদীর মধ্যে চেদী রাজ্য বিস্তৃত ছিল। এই রাজ্যের একটি পরিবার পরে এই রাজপরিবার থেকে কলিঙ্গ রাজ্যে একীভূত হয়।

শূরসেন (ব্রজমণ্ডল):
এর রাজধানী ছিল মথুরায় এবং এর সবচেয়ে বিখ্যাত শাসক ছিলেন অবন্তীপুত্র।

মগধ সাম্রাজ্যের উত্থান:
বিম্বিসার বিজয় ও আগ্রাসনের নীতি অনুসরণ করেন এবং বিভিন্ন রাজ্যকে মগধ সাম্রাজ্যের সাথে যুক্ত করেন। বিয়ে করেও নিজের অবস্থান শক্ত করেছেন। রাজগীর পাহাড় দ্বারা বেষ্টিত ছিল এবং পাথরের দেয়াল নির্মিত হয়েছিল এটি দুর্ভেদ্য সমৃদ্ধ লোহার মজুদ অস্ত্র তৈরি, বন পরিষ্কার এবং কৃষি অর্থনীতির বিকাশের দিকে পরিচালিত করেছিল। এর প্রতিবেশীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে হাতিগুলিও ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়েছিল

মগধের রাজবংশ:

হর্ষঙ্ক রাজবংশ:

বিম্বিসার (খ্রীঃপূঃ ৫৪৪-খ্রীঃপূঃ ৪৯২):
হরিয়াঙ্ক হল বিম্বিসার দ্বারা মগধে প্রতিষ্ঠিত একটি নতুন রাজবংশের নাম। তাকে সেনিয়াও বলা হত যিনি প্রথম ভারতীয় যিনি নিয়মিত এবং স্থায়ী সেনা ছিলেন বিম্বিসার ছিলেন বুদ্ধের সমসাময়িক। পাটলিপুত্র ও রাজগৃহ ছিল মগধ রাজ্যের রাজধানী। মগধ বিহারের পাটনা অঞ্চলে পড়েছে।

অজাতশত্রু (খ্রীঃপূঃ ৪৯২-খ্রীঃপূঃ ৪৬০):
তিনি আরও আক্রমণাত্মক নীতি অনুসরণ করেছিলেন। কাশী ও বজ্জির নিয়ন্ত্রণ লাভ করেন। রাজগীর দুর্গ নির্মাণ করেন। তিনি ১ম বৌদ্ধ সম্মেলন আহবান করেন।

উদয়িন (খ্রীঃপূঃ ৪৬০-খ্রীঃপূঃ ৪৪০):
তিনি পাটলিপুত্রের ভিত্তি স্থাপন করেন এবং রাজগীর থেকে পাটলিপুত্রে রাজধানী স্থানান্তর করেন।

শিশুনাগ রাজবংশ (খ্রীঃপূঃ ৪১২-খ্রীঃপূঃ ৩৪৪):

জনগণ নাগদাস (শেষ হর্ষঙ্ক শাসক) এর উপর শিশুঙ্গকে নির্বাচিত করেছিল যার ফলে হর্ষঙ্ক  রাজবংশের অবসান ঘটে। শিশুঙ্গের স্থলাভিষিক্ত হন কালাশোক যিনি ২য় বৌদ্ধ পরিষদ আহবান করেন।

নন্দ রাজবংশ (খ্রীঃপূঃ ৩৪৪-খ্রীঃপূঃ ৩২৩):

মহাপদ্ম নন্দ ছিলেন নন্দ রাজবংশের প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রথম রাজা। তিনি মগধ রাজবংশকে উৎখাত করে নতুন সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি সর্বক্ষত্রান্তক ও উগ্রসেন নামে পরিচিত ছিলেন। মহাপদ্ম নন্দ একরাট নামে পরিচিত একমাত্র রাজা ছিলেন। প্রাথমিকভাবে, নন্দ রাজবংশ উত্তরাধিকারসূত্রে মগধের একটি বৃহৎ রাজ্যের অধিকারী হয়েছিল এবং পরবর্তীকালে, নন্দ রাজবংশের সীমানা তার শাসকদের দ্বারা সমস্ত দিকে প্রসারিত হয়েছিল। ধন নন্দ ছিলেন নন্দ রাজবংশের শেষ শাসক। আলেকজান্ডার তার শাসনামলে ৩২৬ খ্রিস্টপূর্বাব্দে উত্তর-পশ্চিম ভারত আক্রমণ করেন।

৩২২-২১ খ্রিস্টপূর্বাব্দে চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য মৌর্য রাজবংশ প্রতিষ্ঠা করেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন for "ষোড়শ মহাজনপদ ও মগধ সাম্রাজ্যের উত্থান:"